সুদের টাকা দিতে না পারায় বৃদ্ধকে নির্যাতন, আটক ২

3

জামালপুর প্রতিনিধি: শর্ত মেনেও দাদন ব্যাবসায়ীর নির্যাতনের শিকার বৃদ্ধ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর অভিযান চালিয়ে দুই জনকে আটক করেছে বকশীগঞ্জ থানা পুলিশ। গত রোববার রাতে পুলিশ তাদেরকে আটক করে। এই ঘটনায় নামীয় ৬ জনসহ অজ্ঞাত আরও ৮-১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। তবে ঘটনার মূল হোতা শফিকুল ইসলাম এখনো পলাতক রয়েছেন।

গত এক মাস আগে দাদন ব্যবসায়ী সফিকুল মিয়া বৃদ্ধ নান্ডা শেখকে একটি শর্ত দেন। শর্ত মানলে ৫ হাজার টাকা আর ফেরত দিতে হবে না। শর্তটি হলো- প্রকাশ্যে সবার সামনে উলঙ্গ হতে হবে। টাকা ফেরত দিতে না পারায় বাধ্য হয়ে অসহায় বৃদ্ধ নান্ডা শেখ সবার সামনে উলঙ্গ হন। বৃদ্ধ নান্ডা শেখ ভেবেছিলেন ৫ হাজার টাকা আর ফেরত দিতে হবে না। সফিকুলও একমাস আর টাকা চাননি। কিন্তু গত শুক্রবার সফিকুল আবারও নান্ডা শেখকে টাকা ফেরতের জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। টাকা দিতে না পারায় প্রকাশে বৃদ্ধ নান্ডা শেখকে মারধর করেন দাদন ব্যবসায়ী সফিকুল ইসলাম। এই ঘটনায় গ্রাম্য সালিস বৈঠকও হয়।

গত শনিবার দৈনিক আমাদের সময় পত্রিকায় শর্ত মেনেও দাদন ব্যাবসায়ীর নির্যাতনের শিকার বৃদ্ধ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়। সংবাদ প্রকাশের পর জামালপুর পুলিশ সুপার নাছির উদ্দিন আহমেদের নির্দেশে সাঁড়াশি অভিযান চালায় বকশীগঞ্জ থানা পুলিশ। গত রোববার রাতেই অভিযান চালিয়ে আজগর আলী (৩৮) ও উবাইদুল হক বলাই (৪০) কে আটক করা হয়।

এ বিষয়ে বকশীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম সম্রাট জানান, এই ঘটনায় জড়িত থাকায় দুইজনকে আটক করা হয়েছে। মুল আসামিকে ধরতে পুলিশি অভিযান অব্যহত আছে।

আমাদের সময়

 

আইএনবি/বিভূঁইয়া