৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের নির্যাতিত ও স্বাধীনতাকামীদের প্রেরণা : শেখ পরশ

4

নিজস্ব প্রতিবেদক
বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ বলেছেন, স্বাধীনতা শব্দ হতে বঙ্গবন্ধু আলাদা করা সম্ভব নয়। সে চেস্টা যে হয়নি তা নয়। ৫৬ বছরের জীবনের ২৩ বছর বঙ্গবন্ধু এদেশের স্বাধীনতার জন্য সংগ্রাম করেছেন। স্বাধীনতা ও বঙ্গবন্ধু পরিপূরক, অভিন্ন। স্বাধীনতা সে মহাননায়ককে স্বপরিবারে নৃশংস হত্যাকাÐের শিকার হতে হয়েছে। কিন্তু আল্লাহর রহমতে তারই কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে স্বাধীনতার ৫০ বছরে বাংলাদেশে এখন উন্নয়নশীল দেশ। করোনাকালে দক্ষ নেতৃত্বের কারণে কমনওয়েথভুক্ত দেশসমূহের শীর্ষ ৩ নারী নেতার মধ্যে জননেত্রী শেখ হাসিনা স্থান করেছেন। এটা আমাদের অত্যন্ত গর্বের ও আনন্দের।
আজ রবিবার সকালে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ৭ মার্চ উপলক্ষ্যে যুবলীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় যুবলীগের কেন্দ্রীয় ও ঢাকা দক্ষিন ও উত্তর মহানগর নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে শুধু স্বাধীনতার ডাক দেননি, কিভাবে বিজয় আসবে, তারও নির্দেশনা দিয়েছেন। সেদিনের ভাষণে নিরীহ নিরস্ত্র বাাঙালি সসস্ত্র মুকিযোদ্ধায় পরিনত হয়েছিল।
শেখ ফজলে শামস পরশ বলেন, ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ শুধু বাংলাদেশে নয়, যুগে যুগে বিশ্বের সকল নির্যাতিত-নিপীড়িত ও স্বাধীনতাকামীদের চির প্রেরনা জোগাতে থাকবে। বঙ্গবন্ধু সকল সময়ে প্রাসঙ্গিক। তরুন প্রজন্মকে তার আদর্শ ধারণ করতে হবে এবং দেশকে এগিয়ে নিতে ভূমিকা রাখতে হবে।

যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল বলেন, বিএনপি-জামাত বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বাজাতে দেয়নি। তারা বঙ্গবন্ধুর আর্দশ মুছতে চেয়েছিল। আল্লাহ রহমতে সে ভাষণ শুধু বাংলাদেশ নয়, সারাবিশ্বের দালিলিক সম্পদে পরিনত হয়েছে। বিএনপি মিথ্যাবাদী, চক্রান্তকারীদের দর। তাদের চক্রান্ত রুখতে যুবলীগ প্রস্তুত আছে।

এর আগে সকালে ধানমন্ডিস্থ বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে শ্রদ্ধা জানান যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল।