‘মিসেস শ্রীলঙ্কা’র মুকুট মঞ্চেই কেড়ে নেয়া হলো

3

বিনোদন ডেস্ক: কোনো সৌন্দর্য প্রতিযোগিতার শিরোপা জেতার পর মঞ্চে সবার সামনেই তারই মাথা থেকে খুলে নেয়া হলো মুকুট! শুনতে অবাক লাগলেও সম্প্রতি এমনটাই ঘটেছে শ্রীলঙ্কায়। ঘটনাটি গত রবিবারের। এদিন ‘মিসেস শ্রীলঙ্কা ২০২১’-এর গ্র্যান্ড ফিনালেতে বিজয়ী ঘোষিত হন পুষ্পিকা ডে সিলভা নামে এক সুন্দরী। তার মাথায় মুকুটও পরিয়ে দেয়া হয়।

কিন্তু কয়েক সেকেন্ডও থাকেনি পুষ্পিকার মাথার সেই মুকুট। তাকে মুকুট পরানোর পর পরই তার মাথা থেকে মুকুট কেড়ে নেন ‘মিসেস শ্রীলঙ্কা ২০১৯’ ও ‘মিসেস ওয়ার্ল্ড ২০২০’-এর বিজয়ী কারলিন জুরি। এরপর তিনি ফার্স্ট রানার আপকে বিজয়ী ঘোষণা করে মুকুটটি তার মাথায় পরিয়ে দেন। এ যেন এক অবিশ্বাস্য ঘটনা। এমন ঘটনা ইতিহাসে আগে কখনও ঘটেনি।

ভিডিওটিতে দেখা গেছে, পুষ্পিকাকে ‘মিসেস শ্রীলঙ্কা ২০২১’ ঘোষণা করার পর মুহূর্তেই কারলিন জুরি স্টেজে উঠে আসেন। তিনি বলেন, ‘এই অনুষ্ঠানের একটি নিয়ম রয়েছে যে, প্রত্যেক প্রতিযোগীকে অবশ্যই বিবাহিত হতে হবে। কিন্তু পুষ্পিকা ডে সিলভা একজন ডিভোর্সি নারী। তাই তিনি কখনোই বিজয়ী হতে পারেন না। তাকে এই শো থেকে বাতিল করা হলো।’

এই বলে পুষ্পিকার মাথা থেকে মুকুটটি খুলে নিয়ে ফার্স্ট রানার আপের মাথায় পরিয়ে দেন কারলিন জুরি। অপমানে সঙ্গে সঙ্গে স্টেজ ত্যাগ করেন পুষ্পিকা।

এই ঘটনার পর পুষ্পিকা ফেসবুকে একটি পোস্ট দিযে লেখেন, ‘শুধু শ্রীলঙ্কা নয় গোটা বিশ্বের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো বিউটি পেজেন্ট প্রতিযোগিতায় একজন বিজয়ীর মাথা থেকে মুকুট কেড়ে নেয়া হলো। এই ঘটনায় আমি ভীষণ অপমানিত। আমি ডিভোর্সি নই। আমার স্বামীর থেকে আলাদা থাকি ঠিকই, কিন্তু আমাদের ডিভোর্স হয়নি।’

এরপর বুধবার একটি সাংবাদিক সম্মেলনে পুষ্পিকা জানান, তার প্রতি হওয়া এমন অপমানজনক ব্যবহারের জন্য তিনি আইনি ব্যবস্থা নেবেন। যদিও ‘মিসেস শ্রীলঙ্কা’র ন্যাশনাল ডিরেক্টর চণ্ডীমাল জয়সিংহ জানিয়েছেন, পুষ্পিকাকে তার বিজয়ী সম্মান ও মুকুট ফিরিয়ে দেওয়া হবে।

চণ্ডীমাল জয়সিংহ এও জানিয়েছেন, পুষ্পিকার সঙ্গে ‘মিসেস শ্রীলঙ্কা ২০১৯’ ও ‘মিসেস ওয়ার্ল্ড ২০২০’-এর বিজয়ী কারলিন জুরির এমন আচরণে তারা ভীষণই হতাশাগ্রস্থ। ‘মিসেস ওয়ার্ল্ড অর্গানাইজেশন’ এই বিষয়ে খুঁটিয়ে তদন্ত করছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

আইএনবি/বিভূঁইয়া