ডলার সংকটে বাংলাদেশ…

22

আইএনবি ডেস্ক: প্রতিহিংসার রাজনীতি আর মিথ্যে কথার ফুলঝুড়িতে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে দেশের অর্থনীতি।

আমি মনে করি ডলার সংকটের প্রকৃত রহস্য উদঘাটনে ব্যার্থতার দায়ভার সরকারের সর্বোচ্চ গোয়েন্দা সংস্থার।

বিচিত্র এক জাতির নাম বাঙ্গালী, যৎসামান্য ব্যাক্তি স্বার্থের বশবতী হয়ে সংকটে ফেলি দিচ্ছি মাতৃভূমির ২০ কোটি নিরীহ জনগণকে।

বিগত প্রায় ৯/১০ মাস যাবৎ বন্ধু রাষ্ট্র সৌদি আরবে লক্ষ, হাজার বৈধ-অবৈধ ভিশায় লোক যাচ্ছে পবিত্র মক্কা-মদিনায় ।

এদিকে বিনিময়ে বাংলাদেশে অবস্থানরত সৌদি আম্বাসির কনসুলেট প্রতি ভিশায় হাতিয়ে নিচ্ছে ৩০০ থেকে ৮০০ ডলার। কন্ট্রাক্ট ছাড়া ছাড় পাচ্ছে না যেকোনো একটি ভিশা।

সহযোগী হিসেবে কাজ করছে বাংলাদেশী কতিপয় দালাল।

সৌদি কনস্যুলেটের কর্মকর্তারা নির্ধারিত কতিপয় দালালের মধ্যামে হাতিয়ে নেওয়া লক্ষ, লক্ষ ডলার নিয়ে প্রতি সাপ্তাহে আমোদ-প্রমোধে ঘুরে বেড়াতে যাচ্ছেন পৃথিবীর বিভিন্ন রাষ্ট্রে। এমনকি রাতে যাচ্ছেন সকালে ফিরছেন লক্ষ হাজার ডলার খরচ করে।

ডলার সংকটের মধ্যামে প্রিয় মাতৃভূমির অর্থনীতিকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাওয়ার এটাই প্রধান কারণ বলে আমার কাছে প্রতীয়মান হচ্ছে।

বিষয়টি সরকার ও সরকারের সর্বোচ্চ গোয়েন্দা সংস্থার কঠোর নজরদারি অনতিবিলম্বে কামনা করছি।

স্পর্শকাতর ও জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি ব্যাত্তিগত ভাবে আমার কোন অনু-সুচনার কারন না হলেও সামগ্রিক ভাবে প্রিয় মাতৃভুমির অর্থনীতির গভীর সংকটময় মুহুর্তে আমার লিখনীতে সংকট নিরসনে কিঞ্চিত অংশীদারত্ব বিবেকের আদালতে গর্ববোধ করবো।

বাস্তবতায় বিশ্লেষণ প্রিয় দেশ-প্রেমিকদের বিবেক -?

লেখক-
শেখ হাফিজুর রহমান

আইএনবি নিউজ/বিভূঁইয়া