জগন্নাথপুরে গরুর শেষ হাটে ক্রেতার ঢল

3

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: আজ শুক্রবার সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের ঐতিহ্যবাহী রসুলগঞ্জ বাজারে
কোরবানির শেষ হাটে ক্রেতা-বিক্রেতাদের ঢল নামে। জমজমাট হয়ে ওঠে ক্রয়-বিক্রয়। স্বাস্থ্যবিধিও ছিল উপেক্ষিত।

সরেজমিনে বাজার ঘুরে দেখা যায়, সকাল থেকেই ক্রেতা বিক্রেতাদের ভিড় বাড়তে থাকে হাটে। বেলা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে পশুর হাটের নির্ধারিত স্থান পেরিয়ে প্রায় পুরো বাজারেই পশুর হাট বসে। হাটজুড়ে ছিল দেশি গরুর প্রাধান্য। মাঝারি আকারের গরুর সংখ্যা ছিল বেশি। হাটে ৫০ হাজার থেকে ৯০ হাজার টাকা দামের গরুর সংখ্য বেশি। গবাদি পশুর পাশাপাশি ভেড়া-ছাগল নিয়ে বিক্রেতারা হাটে এসেছেন। ক্রেতা-বিক্রেতাদের উপস্থিতিতে বাজার সরগরম হয়ে ওঠে। তবে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত ছিল। হাটে মাস্ক ছাড়াই অবাধে বিচরণ ছিল লোকজনের।

হাটে আসা প্রবাসী জানালেন, আজ কোরবানির শেষ হাট ছিল। যে কারণে পুরোবাজারেই পশুর হাট বসে। সকাল থেকেই কেনাবেচা শুরু হয়েছে। সকালের দিকে দাম একটু চড়া ছিল। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে দাম একটু কমেছে।

গরু বিক্রেতা বারিক মিয়া জানান, ভালো বেচাকেনা হচ্ছে। ক্রেতাদের প্রচণ্ড সমাগমে জমজমাট হয়ে উঠেছে বাজার।

হাটের ইজারাদার আবু জালালী বলেন, চাহিদা অনুয়ায়ী ন্যায্যমূল্যে মানুষ কোরবানির হাটে পশু কিনছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য বারবার মাইকিং করে প্রচারণা চালাচ্ছি আমরা।

আইএনবি/বি.ভূঁইয়া