সকাল ১০:২৪, মঙ্গলবার, ২১শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং

চরফ্যাশন ৩টি ইউনিয়নের নির্বাচনী তফসিল সারাবাংলা

আইএনবি নিউজ টোয়েন্টিফোর.কম

নভেম্বর ১৪, ২০১৭

এম আমির হোসেন ভোলা: চরফ্যাশন উপজেলার জিন্নাগড়, নীলকমল ও আমিনাবাদ ইউনিয়নের তফসীল ঘোষণার পর জিন্নাগড় ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেন নৌকার প্রতীকে নির্বাচন করা সুযোগ দেওয়া হলেও আমিনাবাদ ও নীলকমল ইউনিয়নের প্রতীক পেতে দৌড়ঝাপ শুরু হয়েছে। হোসেন মিয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও উপমন্ত্রী আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপিকে অভিনন্দন জানিয়ে মাঠে নামছেন ।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২৮ ডিসেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। জিন্নাগড় ইউয়িনে ৯হাজার ৭৭০ভোট, আমিনাবাদে ১০হাজার ৪৮১ ও নীলকমলে ২০হাজার ২৩৮ ভোট রয়েছে। তার মধ্যে নীলকমল ইউনিয়নের আ‘লীগের সভাপতি আলমগীর হোসেন হাওলাদার ও বর্তমান চেয়ারম্যানের মধ্যে নৌকা প্রতীক নিয়ে লবিং গ্রুপিং চলছে। ওই এলাকায় স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি সম্পাদকসহ সহযোগী সংগঠনের ভোটের মাধ্যমে নৌকা প্রতীক দেয়া হবে বলে দলীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে। আমিনাবাদ ইউনিয়নের প্রতীক পেতে ৩/৪জন লবিং করেছেন বলে জানা যাচ্ছে। তবে দলীয় নেতাকর্মীগন পরীক্ষিত ত্যাগী নেতাকর্মীদের প্রতীক দেয়ার জন্যে দাবী করা হয়েছে।
মঙ্গলবার বেলা ১২টায় দলীয় কার্যায়ে নৌকার প্রতীকের সিদ্ধান্ত দেওয়ার সংবাদে কার্যালয়ে নেতাকর্মী ও সমর্থকদেরকে নিয়ে ভীর জমায়। কে পাবে দলীয় নমিনেশন এই নিয়ে হতাশা মুখও অনেকের দেখা গেছে। হঠাৎ দলীয় কার্যলয়ে উপজেলা আওয়ামীগের সাধারন সম্পাদক নুরুল ইসলাম ভিপি ৩টি ইউনিয়নের দলীয় ফরম দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন। উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রথম যুগ্ন সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব মোহাম্মদ হোসেন চেয়ারম্যানকে নৌকার প্রতীকের ফরম তুলেন দেন।
নীলকমল ইউনিয়নে আলমগীর হোসেন হাওলাদারকে, আমিনাবাদ ্্্্ইউনিয়ানে সাইদুর রহমান মিঠু ফরম নিয়েছেন। মোঃ হোসেন চেয়ারম্যানকে নৌকার প্রতীক নিয়ে এই প্রথম নির্বাচন করা সুযোগ দেয়া তিনি এ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য উপমন্ত্রী আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপির প্রতি কৃজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। ওই সময় উপস্থিত ছিলেন চরফ্যাশন বিএড কলেজ অধ্যক্ষ আহাম্মদ উল্লাহ, জিন্নাগড় আ’লীগ সভাপতি মাষ্টার মো.ইয়র উল্লাহ, সাধারন সম্পাদক মো.সিরাজুল ইসলামসহ ওয়ার্ড আ’লীগ সভাপতি/সম্পাদক ও স্থানীয় নেতাকর্মী সমর্থকগন উপস্থিত ছিলেন। উপজেলা আওয়ামীলীগের জনৈক নেতা বলেন, জিন্নাগড় বর্তমান চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেনের জীবনে কোন ব্যর্থতা নেই। তিনি দেশ, দল এবং তার নির্বাচনী এলাকায় সাধারন মানুষের উপকারে নিরলস ভাবে কাজ করে আসছেন। যার ফলে তিনি এ উপজেলা একাধিক সংগঠনের নের্তৃত্ব দিয়ে আসছেন।

তিনি এই সর্ব প্রথমে উপজেলা রিক্রসা সমিতির সভাপতি, বিপুল ভোটের ব্যবধানে জিন্নাগড় ইউপি চেয়ারম্যান হিসাবে একাধিবার নির্বাচনে হয়েছেন। তিনি ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি, টাটা মালিক সমিতির সভাপতি, টেম্পু মালিক সমিতির সভাপতি, কতুবগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, কাশেম গঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ছিলেন। দলীয় ভাবে তিনি প্রথমে যুবলীগের সহ-সভাপতি, সেখান থেকে উপজেলা আওয়ামীগীর ১নাম্বার যুগ্ন সাধারন সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে তিনি জিন্নাগড় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান।

মঙ্গলবার তিনি প্রধান মন্ত্রী নৌকা প্রতীক নির্বাচন করা সুযোগ পেয়ে নিজেকে ধন্য বলে মনে করেন। দলী ভাবে নৌকায় পেয়ে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবুল কালাম আজাদ অসুস্থ্যতা থাকা তাকে দেখতে বাসা গিয়েছেন। ইতিপূর্বে তিনি উপমন্ত্রী আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপি সাথে দেখা করে ঢাকা থেকে লঞ্চযোগে মঙ্গলবার ভোর বেলা বেতুয়া ঘাটে পৌঁছলে শতশত নেতাকর্মী ও সমর্থক তাকে ফুলের তোড়ণ দিয়ে বরন করে নেন। বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয় করার আশ্বাস প্রদান করছেন এলাকাবাসী।

এ বিভাগের আরো সংবাদ

শেয়ার করুন: